শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
Logo চিরিরবন্দরে ফজলুর রহমান স্মৃতি পাঠাগার এর নির্বাহী কমিটির আগামী রোববার আলোচনা সভা। Logo গাজীপুরে ডাকাতির প্রস্ততিকালে ডাকাত দলের ৪ সদস্য আটক Logo গাইবান্ধায় মশার কয়েলের আগুনেঃ গোয়াল ঘরের গরুসহ ভষ্মিভূত। Logo কাহারোলে নিখোঁজ যুবককে উদ্ধারে নেমেঃ ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরির মৃত্যু Logo গাইবান্ধায় এক কেজি গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। Logo চিরিরবন্দরে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় Logo জয়পুরহাটে ডাকাতি সংঘটনের ৭ ঘন্টার মধ্যে মালামাল ও দেশীয় অস্ত্রসহ ৩ জন আটক। Logo নীলফামারী থেকে হারানো শিশুকে উদ্ধার করেঃ মা-বাবা কাছে ফিরিয়ে দিলো রাশাস। Logo বালুবোঝাই ট্রলারের সঙ্গে যাত্রীবোঝাই সংঘর্ষে ট্রলার নিহত ২১;আহত ০৬। Logo চিরিরবন্দরে মা-ছেলেকে গ্রেপ্তারের ঘটনায়ঃ আসামি সিআইডির এএসপি সারোয়ার সহ জামিন নামঞ্জুর।

লকডাউনে ভোগান্তি পোশাকশ্রমিকদের

নিজস্ব প্রতিনিধি / ৮৬ বার পঠিত
সময় : মঙ্গলবার, ২৯ জুন, ২০২১, ১১:২৫ পূর্বাহ্ণ

গতকাল সোমবার থেকে লকডাউন জারি করেছে সরকার। এতে বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন চলাচল। ফলে বেকায়দায় পড়েছেন আশুলিয়ার অনেক পোশাক শ্রমিক। যেসব শ্রমিক কারখানা থেকে দেওয়া পরিবহন সুবিধা না নিয়ে পরিবহন ভাতা নেন, তাঁরা ভোগান্তিতে রয়েছেন। এ ছাড়া যাঁদের কারখানা পরিবহন সুবিধা দেয় না, সাধারণ সময়ের চেয়ে তাঁদের এখন আরও বেশি ভোগান্তি হচ্ছে।

গতকাল সোমবার আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায়, গণপরিবহন বন্ধ থাকায় সকাল থেকেই বাসস্ট্যান্ডটিতে দাঁড়িয়ে আছে কয়েক শ পোশাকশ্রমিক। দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষার পর গণপরিবহন না পেয়ে অপেক্ষমাণ শ্রমিকদের অনেকেই হেঁটে রওনা দেন কর্মস্থলের উদ্দেশে। আবার কেউ কেউ ব্যাটারিচালিত রিকশা কিংবা অটোরিকশায় যাচ্ছেন গন্তব্যে। তবে যাত্রীর তুলনায় এসব যানবাহনের সংখ্যা কম হওয়ায় চালকেরা নিচ্ছেন বাড়তি ভাড়া। নিরুপায় হয়ে সেই বাড়তি ভাড়া দিয়েই অনেক শ্রমিক গেছেন কর্মস্থলে।

এত কিছুর মধ্যে কিছু ভিন্ন চিত্রও দেখা গেছে। কিছু গণপরিবহনের চালকেরা সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে গাড়ি বের হয়েছেন মহাসড়কে। নির্দেশনা অমান্য করে মহাসড়কে আসা গণপরিবহনগুলো বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছা মাত্রই তাতে উঠতে হুমড়ি খেয়ে পড়েন পোশাকশ্রমিকেরা। ঠেলাঠেলি ও গাদাগাদি করে উঠতে গিয়ে উপেক্ষিত হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি।

জামগড়া এলাকার একটি তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিক বিউটি দাস বলেন, তিনি বাইপাইল এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন। তাঁর বাসা থেকে কর্মস্থলের দূরত্ব ৫ কিলোমিটারের মতো। এ জন্য তিনি তাঁর কারখানা থেকে এত দিন পরিবহন সুবিধা না নিয়ে পরিবহন ভাতা নিতেন। সোমবার সকাল থেকে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় কর্মস্থলে যেতে তিনি চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। বাইপাইল থেকে জামগড়া পর্যন্ত যেতে ৭০ টাকা ভাড়া চাচ্ছে অটোরিকশার চালকেরা। বাধ্য হয়েই তিনি বাড়তি ভাড়ায় কর্মস্থলে যাচ্ছেন বলে জানান।

জুলহাস নামে অপর এক শ্রমিক বলেন, তাঁদের কারখানায় দূর-দূরান্তের শ্রমিকদের জন্য আগ থেকেই পরিবহন সুবিধা দিত। শুধু যেসব শ্রমিক কারখানার আশপাশে ভাড়া থাকেন, তাঁদের যাতায়াত ভাতা দেওয়া হতো। এ জন্য গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও পরিবহন সুবিধা নেওয়া শ্রমিকদের নতুন করে কোনো ভোগান্তিতে পড়তে হয়নি।

শ্রমিকদের ভোগান্তির বিষয়ে গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাংগঠনিক সম্পাদক কে এম মিন্টু বলেন, ‘পোশাক কারখানা যেহেতু চালু আছে, সরকারের উচিত হবে শিল্পাঞ্চলগুলোতে সব শ্রমিকের কর্মস্থলে যাওয়া ও ফেরার সময়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দেওয়া। অন্যথায় এসব শ্রমিককে প্রতিদিন এমন ভোগান্তিতে কর্মস্থলে যেতে হবে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন :
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD